google-site-verification=-0qA71p_m4_ojRl3SU9bMTAkePfx1bUjpTMPTRND5hU
Home / news / বোর্ড পরীক্ষার ফলে থাকছে না জিপিএ-৫, আসছে সিজিপিএ-৪

বোর্ড পরীক্ষার ফলে থাকছে না জিপিএ-৫, আসছে সিজিপিএ-৪

আন্তর্জাতিকভাবে পরীক্ষার ফলাফলের সমতা তৈরি করতে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি), সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) এবং হায়ার সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষায় জিপিএ-৫ তুলে দিচ্ছে সরকার।

আগামী জেএসসি পরীক্ষা থেকেই কিউমুলেটিভ গ্রেড পয়েন্ট অ্যাভারেজ- সিজিপিএ ৪-এর মধ্যে ফল প্রকাশের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

গতকাল বুধবার আন্তঃশিক্ষাবোর্ড সমন্বয় কমিটির সঙ্গে বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সিজিপিএ পুনর্বিন্যাস করে একটি খসড়া উপস্থাপনের নির্দেশ দেন।

আন্তঃশিক্ষাবোর্ডের সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক গণমাধ্যমকে এ বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আন্তঃবোর্ডের সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রীর বৈঠকে সিজিপিএ ৫-এর পরিবর্তে ৪-এর মধ্যে ফল প্রকাশে সবাই একমত। এ ব্যাপারে বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে বৈঠক হবে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের ফল পর্যালোচনা করা হবে।’

সিজিপিএ ৪-এর মধ্যে কিভাবে ফল দেয়া যায় সে ব্যাপারে আগামী এক মাসের মধ্যে একটি খসড়া শিক্ষামন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হবে বলেও জানান তিনি। আর সম্ভব হলে চলতি বছরের জেএসসি থেকেই সিজিপিএ ৪-এর মধ্যে ফল প্রকাশ করা হবে।

বিগত বছরগুলোতে পাবলিক পরীক্ষায় সিজিপিএ ৫-এর মধ্যে ফল প্রকাশ করা হয়েছে। তবে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ফল প্রকাশ করা হয় সিজিপিএ ৪-এর মধ্যে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে তাই এবার সিজিপিএ ৪-এর মধ্যে ফল প্রকাশের উদ্যোগ নিচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় মনে করছে, পাবলিক পরীক্ষায় সর্বোচ্চ জিপিএ-৪ করা হলে এটি হবে আন্তর্জাতিক মানের। বিদেশের শিক্ষাব্যবস্থার গ্রেডিং পদ্ধতির সঙ্গে সমান্তরাল হবে।

উচ্চ শিক্ষাস্তরে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য করতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। এছাড়া বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার সময় বা ব্যাপ্তিও কমিয়ে আনা হবে। এখন থেকে জেএসসি, জেডিসি পরীক্ষা ৮ থেকে ১০ দিনের মধ্যে এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা ২০ থেকে ২২ দিনের মধ্যে শেষ করার চেষ্টা করা হবে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গড়ে সব বিষয়ে ৮০-এর ওপরে নম্বর পেলে সিজিপিএ ৪ ও লেটার গ্রেড হয় ‘এ প্লাস’। এরপর ৭৫ থেকে ৮০-এর মধ্যে সিজিপিএ ৩.৭৫ ও লেটার গ্রেড ‘এ; ৭০ থেকে ৭৫-এর মধ্যে গ্রেড পয়েন্ট ৩.৫০ ও লেটার গ্রেড ‘এ মাইনাস; ৬৫ থেকে ৭০-এর মধ্যে পয়েন্ট ৩.২৫ ও লেটার গ্রেড ‘বি প্লাস; ৬০ থেকে ৬৫-এর মধ্যে পয়েন্ট ৩ ও লেটার গ্রেড ‘বি; ৫৫ থেকে ৬০-এর মধ্যে পয়েন্ট ২.৭৫ ও লেটার গ্রেড ‘বি মাইনাস’; ৫০ থেকে ৫৫-এর মধ্যে পয়েন্ট ২.৫০ ও লেটার গ্রেড ‘সি প্লাস’; ৪৫ থেকে ৫০-এর মধ্যে পয়েন্ট ২.২৫ ও লেটার গ্রেড ‘সি’; ৪০ থেকে ৪৫ নম্বর পেলে পয়েন্ট ২ ও লেটার গ্রেড ‘ডি’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আর ৪০-এর কম নম্বর পেলে ফেল, এর লেটার গ্রেড ‘এফ’, এতে কোনো গ্রেড পয়েন্ট নেই।

Check Also

Besides pension, everyone will get pension!

Not everyone will get pension even if they do not have jobs. Pensions are paid …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *